প্রতিবন্ধী এক খোকনের গল্প….

জনদাবী রিপোর্ট, সাপ্তাহিক জনদাবী// মানুষের জীবন একটাই। এ জীবনে কত রকমের পরিস্থিতি মোকাবেলা করে চলতে হয় তার হিসেব ক’জনইবা রাখে। বীশ্বরদীর ছলিমপুর ইউনিয়নের ভাড়ইমারী গ্রামের এক জীবন সংগ্রামী সিরাজুল ইসলাম খোকন। তার পিতার নাম নবাব আলী। সাত ভাই-বোনের বিরাট এক সংসারের সে একজন সদস্য। মাত্র পাঁচ বছর বয়সে পোলিও রোগে আক্রান্ত হয়ে তার দুটি পা নষ্ট হয়ে গেছে। কিন্তু জীবনতো থেমে থাকে না।
বয়স বেড়ে যৌবন এসেছে, বিয়ে হয়ে এক পুত্রের বাবা হয়েছেন খোকন। বড় সংসারের ভার বইতে না পেরে বাবা তাকে আলাদা করে দিয়েছেন। এরপর থেকে তার জীবন সংগ্রাম আরো বেড়ে গেছে। একটি ইঞ্জিন চালিত ভ্যান চালায় সে। দুটি পা খারাপ থাকায় সহজে কেউ তার কাছে ভ্যান দিতে চাইতো না। জীবিকার প্রয়োজনে ত্রিশ হাজার টাকা ঋণ নিয়ে একটি ভ্যান কিনেছে খোকন।
সমস্যা এখানেই শেষ নয়। প্রতিবন্ধী হওয়ার কারনে প্রথম প্রথম সহজে যাত্রীরা তার ভ্যানে উঠতে চাইত না। এখন পরিচিত যাত্রীরা ওঠে; কিন্তু নতুন যাত্রীরা এখনো দ্বিধা করে তার ভ্যানে উঠতে। সংসার চালাতে ভিক্ষাবৃত্তি বেছে না নিয়ে খোকন পরিশ্রম করে ভ্যান চালিয়ে বাঁচতে চায়। কিন্তু তার এই জীবন সংগ্রামে সমাজের মানুষ যদি একটু সহযোগিতা না করে তবে কিভাবে টিকে থাকবে সে, কিভাবে শোধ করবে লোন? এই ভাবনা তাকে দুর্বল করে দেয় মাঝে মাঝে। এরপরও সে এগিয়ে চলেছে। খোকনের স্বপ্ন তার ছেলেকে লেখাপড়া শিখাবে। চার বছরের পুত্রকে সামনের বছর স্কুলে ভর্তি করবে, তাকে উপযুক্তভাবে গড়ে তুলবে। খোকনের এই স্বপ্ন কি পূরণ হবে?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

*