ঈশ্বরদীতে ট্রেনের ইঞ্জিন থেকে তেল চুরি নিয়ে মারামারি : নিরাপত্তা প্রহরী বরখাস্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঈশ্বরদী ডটকম// ঈশ্বরদী রেলওয়ে জংশন এলাকায় যাত্রীবাহী ট্রেনের ইঞ্জিন থেকে তেল চুরি বৃদ্ধি পেয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। রেলওয়ের কতিপয় অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীর যোগসাজশে একটি সংঘবদ্ধ চক্র দীর্ঘদিন ধরে অবৈধ এ ব্যবসা করে আসছে। তেল চুরির ঘটনা এবং চুক্তির টাকা বাড়ানো-কমানোর ঘটনাকে কেন্দ্র করে মাঝে মধ্যে নিরাপত্তা বাহিনী ও লোকো মাস্টারের (ট্রেনচালক) মধ্যে মারপিটের ঘটনাও ঘটছে।

গত শনিবার ইফতারির আগে স্টেশনের উত্তর ইয়ার্ডে ৬৩১২ নম্বর তেলবাহী ইঞ্জিনের তেলচুরি ও চুক্তির টাকা কমানো-বাড়ানোকে কেন্দ্র করে নিরাপত্তা বাহিনী, লোকোমাস্টার (ট্রেনচালক) ও সহকারী লোকোমাস্টারের মধ্যে বেদম মারামারির ঘটনা ঘটে। ঘটনাকে কেন্দ্র করে রেলওয়ে নিরাপত্তা প্রহরী রণিকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

সূত্র জানায়, শনিবার ইফতারের আগে লোকোমাস্টার আব্দুল করিম শাহ ও সহকারী লোকোমাস্টার হালিম ৬৩১২ নম্বর ইঞ্জিন চালিয়ে খুলনা থেকে একটি তেলবাহী বিটিও ট্রেন ঈশ্বরদীর উত্তর ইয়ার্ডে নিয়ে আসে। আসার পর ১৫/২০ টি প্লাস্টিকের বস্তায় ভরে চোরাই তেল বিক্রি করেন। বস্তাপ্রতি নিরাপত্তা সদস্যদের পূর্বনির্ধারিত ৩’শ টাকা করে দিতে গেলে দায়িত্ব থাকা নিরাপত্তা কর্মী নায়েক মাসুদুর রহমান ৫’শ টাকা করে দাবি করলে লোকোমাস্টার ও সহকারী লোকোমাস্টার ক্ষিপ্ত হয়। এসময় জোরপূর্বক তেল বিক্রি করতে চাইলে নিরাপত্তা কর্মী নায়েক মাসুদুর রহমান ও প্রহরী রণি তাদের বাধা দিলে উভয়ের মধ্যে মারামারির ঘটনা ঘটে।

রেলওয়ে ঈশ্বরদী জিআরপি থানার ওসি সাইদুল ইসলাম বলেন, ঘটনাটি শুনেছি। তবে কোন পক্ষই অভিযোগ দেয়নি। যেহেতু বিভাগীয় বিষয়, সেহেতু আমরাও এ বিষয়ে পদক্ষেপ নিচ্ছিনা। নিরাপত্তাবাহিনীর সিআই আবুহেনা জানান, এ ঘটনায় প্রহরী রণিকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে ম্যানেজার (ডিআরএম) অসীম কুমার তালুকদার বলেন, সহকারী ট্রেন চালক (এএলএম) হালিমকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। ঘটনার পর পাকশী বিভাগীয় পরিবহণ কর্মকর্তা শওকত জামিল মোহসীকে আহবায়ক করে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

*