ঈশ্বরদীতে রেলের তেল চুরি নিয়ে সংঘর্ষ

0
159

দেশের অন্যতম বৃহৎ ঈশ্বরদী রেলওয়ে জংশন ইয়ার্ডে রেলওয়ের ইঞ্জিন থেকে তেল চুরির মহোৎসব চলছে। তেল চুরির ঘটনা এবং চুক্তির টাকা বাড়ানো-কমানোর ঘটনাকে কেন্দ করে মাঝে মধ্যে নিরাপত্তা বাহিনী ও এএলএমের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটছে।

১০ জুন শনিবার ইফতারের পূর্ব মুহূর্তে স্টেশনের উত্তর ইয়ার্ডে ৬৩১২নং তেলবাহী ইঞ্জিনের তেল চুরি ও চুক্তির টাকা কমানো-বাড়ানোকে কেন্দ্র করে নিরাপত্তা বাহিনী ও এএলএমের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় প্রহরী রনিকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। নিরাপত্তা বাহিনীর কতিপয় সদস্য, স্টেশনের কর্মচারী ও এলএমদের একটি সূত্রের দেয়া তথ্যে এসব জানা গেছে।

সূত্র মতে, শতবর্ষী ঈশ্বরদী জংশন স্টেশনের রি-মডেলিং কাজসহ নানা ধরনের উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়নের মাধ্যমে রেলওয়ের ভাবমূর্তি বৃদ্ধির চেষ্টা চলছে, ঠিক তখনই ঈশ্বরদীর একটি সুবিধাবাদীমহলের কতিপয় সদস্য, নিরাপত্তা বাহিনীর কতিপয় সদস্য ও কিছু চিহ্নিত এলএম এবং এএলএমরা বেশিরভাগ ইঞ্জিনের ফুয়েল পাম্প দিয়ে রানিং ইঞ্জিন থেকে তেল চুরি করে বিক্রি করছে। বিষয়টি অনেকেরই জানা থাকলেও রহস্যজনক কারণে তেল চুরি বন্ধ হচ্ছে না।

শনিবার ইফতারের আগ মুহূর্তে এলএম আবদুল করিম শাহ ও এএলএম হালিম ৬৩১২নং ইঞ্জিন চালিয়ে খুলনা থেকে একটি তেলবাহী বিটিও ট্রেন ঈশ্বরদীর উত্তর ইয়ার্ডে নিয়ে আসে। আসার পর ১৫-২০টি প্লাস্টিকের বস্তায় ভরে চোরাই তেল বিক্রি করা হয়। বস্তাপ্রতি নিরাপত্তা সদস্যদের পূর্বনির্ধারিত ৩শ’ টাকা করে দিতে গেলে দায়িত্বরত নিরাপত্তা নায়েক মাসুদুর রহমান ৫শ’ টাকা করে দাবি করলে এলএম ও এএলএমরা ক্ষিপ্ত হয়। একপর্যায়ে এলএম ও এএলএমরা জোরপূর্বক তেল বিক্রি করতে চাইলে নিরাপত্তা নায়েক মাসুদুর রহমান ও প্রহরী রনি তাদের বাধা দিলে উভয়ের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় প্রহরী রনিকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

নিরাপত্তা বাহিনীর সিআই আবুহেনা জানান, এ ঘটনায় প্রহরী রনিকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। পাকশীর ডিআরএম অসীম কুমার জানান, ঘটনার পর পাকশী বিভাগীয় পরিবহ কর্মকর্তা শওকত জামিল মৌহসীকে আহ্বায়ক করে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

*