নাটোরে স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

0
338

নাটোরের  লালপুর উপজেলার ধনঞ্জয়পাড়া গ্রামে এক গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যা করার অভিযোগ উঠেছে। গতকাল সোমবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় নিহত নারীর স্বামীকে আটক করেছে পুলিশ।

দেওয়া উপজেলার আব্দুলপুর পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বরত কর্মকর্তা উপপরিদর্শক (এসআই) আনিসুর রহমানের ভাষ্য, নিহত ওই নারীর শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তাঁর স্বামী রুহুল আমিনকে (২৬) আটক করা হয়েছে। মামলার প্রস্তুতি চলছে।

প্রতিবেশী রহিদুল ইসলাম ও মাকসুদা বেগমের ভাষ্যমতে, গতকাল সন্ধ্যায় রুহুল আমিন তাঁর স্ত্রী চম্পা খাতুনকে বেদম মারধর করেন। এর কিছু সময় পর  ‘আমার বউ বিষ খাইছে’ বলে আশপাশের লোকজনকে ডেকে আনেন তিনি। এ সময় তাঁরাও সেখানে যান এবং চম্পাকে অচেতন অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন। চম্পার পাশে একটি কীটনাশকের বোতল পড়ে ছিল। মুখে কীটনাশকের গন্ধ ছিল।

উপস্থিত লোকজনের পরামর্শে রুহুল গ্রামের একজন চিকিত্সককে ডেকে আনেন। প্রাথমিক চিকিত্সায় চম্পা জ্ঞান ফিরে পান। তখন ডাক্তার তাঁকে উন্নত চিকিত্সার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন। ট্রেনে করে রাজশাহী নেওয়ার সময় রাত ১০টার দিকে লোকমানপুর স্টেশনের কাছাকাছি পৌঁছালে ট্রেনের মধ্যে চম্পার মৃত্যু হয়।

রুহুল সেখান থেকে চম্পার লাশ নিয়ে বাড়িতে ফিরে আসেন। এরপর লাশ রেখে পালানোর চেষ্টা করেন তিনি। এ সময় গ্রামবাসী তাঁকে ধরে গাছের সঙ্গে বেঁধে রাখে।

নিহত চম্পা খাতুনের মামাতো ভাই নাসির উদ্দিনের ভাষ্য, নেশার টাকা না পেয়ে রুহুল চম্পাকে পিটিয়ে মেরেছেন। রুহুলই চম্পার মুখে কীটনাশক ঢেলে দিয়ে হত্যা বলে চালানোর চেষ্টা করেছেন।

রুহুল আমিন এ অভিযোগ অস্বীকার করেন। রুহুলের দাবি, তাঁর স্ত্রী বিষ পান করে মারা গেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

*