ঈশ্বরদী-ঢাকা রেলপথে ৬ রেলক্রসিং অরক্ষিত

ঈশ্বরদী-ঢাকা রুটে পাবনার ঈশ্বরদী, আটঘরিয়া, চাটমোহর ও ভাঙ্গুড়া উপজেলায় ৬টি রেলক্রসিং দীর্ঘদিন ধরে অরক্ষিত রয়েছে। রেলক্রসিংয়ের স্থানে নির্মাণ করা হয়নি রেলগেট। নেই গেটম্যান। ফলে প্রতিনিয়ত ঝুঁকি নিয়ে যাতায়াত করছেন এলাকাবাসী। দুর্ঘটনায় পতিত হচ্ছে যানবাহন। সতর্কীকরণ সাইনবোর্ড টানিয়ে দায় সেরেছে সংশিল্গষ্ট বিভাগ।

চাটমোহর উপজেলার মধ্যে রেলপথ রয়েছে প্রায় ১৪ কিলোমিটার। এর মধ্যে রয়েছে ৫টি রেলক্রসিং। ৪টি সম্পূর্ণ অরক্ষিত। একটিতে গেট ও গেটম্যান রয়েছেন। এসব রেলক্রসিংয়ের স্থানে নির্মাণ (আড়াআড়িভাবে) করা হয়েছে গ্রামীণ সড়কপথ। এই সড়কগুলো হলো_ পার্শ্বডাঙ্গা-চাটমোহর সড়ক, প্রভাকরপাড়া-নতুনবাজার সড়ক, জগতলা পূর্বপাড়া-রেলবাজার ও জগতলা পশ্চিমপাড়া-রেলবাজার সড়ক।

এ ছাড়া ভাঙ্গুড়া ও ঈশ্বরদীতে দুটি রেলক্রসিং রয়েছে সম্পূর্ণ অরক্ষিত। এসব সড়কের রেলপথ ক্রসিং স্থানে কোনো রেলগেট নির্মাণ করা হয়নি। ক্রসিংয়ের অদূরে একটি সতর্কীকরণ সাইনবোর্ড দিয়েই দায়িত্ব সেরেছে সংশ্লিষ্ট বিভাগ। ফলে প্রতিদিন এসব সড়কে ঝুঁকি নিয়ে যাতায়াত করছে শত শত মানুষ।

তবে দুর্ঘটনা রোধে পার্শ্বডাঙ্গা-চাটমোহর সড়কের রেলক্রসিংয়ের স্থানে এলাকাবাসীর উদ্যোগে স্থানীয় একজনকে গেটম্যানের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তিনি ট্রেন চলাচলের সময় বাঁশ ফেলে সড়কপথের যানবাহনের গতিরোধ করেন। এজন্য ওই সড়কের যানবাহন চালকরা তাকে আর্থিকভাবে সাহায্য করেন। সরকারিভাবে রেলগেটে গেটম্যান নিয়োগ দিলে ট্রেন চলাচলের সময় প্রাণহানির ঘটনা থেকে রক্ষা পাবে এলাকাবাসী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

*